‘মুক্তি পিন’ মূলত বাংলাদেশের সর্বপ্রথম এবং সর্ববৃহৎ উদ্যোগ , যেখানে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকে ডিজিটাল পদ্ধতিতে সংরক্ষণ করে রাখবে বাংলাদেশের মানচিত্রে। মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজরিত এই ডিজিটাল হিস্ট্রি আর্কাইভটির নাম ‘প্রিয় মুক্তি পিন। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের একটি স্থানকেও অজানা থাকতেদেবো না আমরা। সমগ্র ডিসেম্বর মাস জুড়ে ,টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া, ৬৪ টি জেলায়,আমাদের প্রিয়ভূখণ্ডের প্রতি ইঞ্চি মৃৎবিন্দুতে চিরুনি তল্লাশি চালিয়ে সুপ্ত থাকা ঐতিহাসিক স্থানগুলোসহ মুক্তিযুদ্ধকালীন ছোট বড় ঘটনাগুলোকে শনাক্ত করে অজানা কিংবা ক্ষয়িষ্ণুপ্রায় ইতিহাসকে দীপ্তিময় করে তুলব- আপনি,আমি এবং আমরা।

এটি মূলত একটি সামগ্রিক তথ্য বহুল ডিজিটাল আর্কাইভ যেখানে এক নজরেই দেখা যাবে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজরিত প্রতিটি স্থান, তার সাথে সম্পর্কিত ছবি কিংবা ভিডিও এবং ৭১ সনে সেখানে ঘটে যাওয়া ঘটনাটি। এ ডিজিটাল আর্কাইভ ইতিহাসকে পৌঁছে দেবে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে, যাতে প্রজন্মান্তরে আমাদের অমূল্য মুক্তিযুদ্ধ সংগ্রামের ঘটনা হারিয়ে না যায়। গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সহায়তায় ‘প্রিয় লিমিটেড’আয়োজন করেছে ‘মুক্তি পিন’।

সর্বস্তরের বাংলাদেশি নাগরিককে এই মহান উদ্যোগে সংযুক্ত করতে ডিসেম্বর মাস থেকে প্রিয় মুক্তি পিন সফটওয়্যারটি সকলের জন্য উন্মুক্ত করে রাখা হবে। বাংলাদেশে সহ বিশ্বের যে কোন প্রান্ত থেকে আগ্রহী যে কেউ এই মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে আমাদের মুক্তি পিন ম্যাপের মাধ্যমে প্রকাশ করে ইতিহাসের সর্ববৃহত এই ডিজিটাল আর্কাইভের অংশ হতে পারবেন।

আগামী মার্চ'২০১৮ এ সর্বোচ্চ সংখ্যক সঠিক মুক্তি পিনদাতাদের মধ্য থেকে প্রথম ১০০ জনের প্রত্যেককে নগদ ১০ হাজার টাকা করে পুরস্কার ও অন্যান্য সৌজন্য সামগ্রী উপহার দেওয়া হবে।