কলাগাছিয়ায় যুদ্ধ

Posted by Mehnaz Zerin Shova
Feb. 19, 2019, 4:44 p.m.
১৯৭১ সালের ২৬ অক্টোবর গিয়াসউদ্দিন খবর পান তাঁদের অবস্থানস্থলের দিকে নদীপথে এগিয়ে আসছে পাকিস্তানি গানবোট। সে সময়ে গিয়াসউদ্দিন ছিলেন নারায়ণগঞ্জ এলাকায় যুদ্ধরত মুক্তিবাহিনীর একটি গেরিলা দলের দলনেতা। এ দলের অবস্থান ছিল মেঘনা-শীতলক্ষ্যা নদীর মোহনার কলাগাছিয়ায়। মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর গানবোট দিনে, রাতে ওই এলাকায় টহল দিত। সহযোদ্ধাদের নিয়ে এর আগেও পাকিস্তানি গানবোটে আক্রমণ করার চেষ্টা করেন গিয়াসউদ্দিন। ২৫ অক্টোবর সন্ধ্যার পরও তিনি সহযোদ্ধাদের নিয়ে সারা রাত নদীর তীরে অপেক্ষা করেন কিন্তু ওইদিন কোন গানবোট আসেনি। ভোরে গিয়াসউদ্দিন সহযোদ্ধাদের নিয়ে নিজেদের গোপন শিবিরে ফিরে যান এবং বেলা ১১টার দিকে স্থানীয় এক কৃষক দৌড়ে এসে তাঁকে পাকিস্তানি গানবোট আসার খবর জানান। কৃষক তাঁকে জানান, তিনি নদীতে গানবোট আসতে দেখেছেন এবং সেটি কলাগাছিয়ার দিকে এগিয়ে আসছে। গিয়াসউদ্দিনসহ পরিশ্রান্ত মুক্তিযোদ্ধারা ৩০ জন দ্রুত তৈরি হয়ে আরআর গানসহ পুনরায় অবস্থান নেন নদীর তীরের সুবিধাজনক স্থানে। কিছুক্ষণের মধ্যেই গানবোটটি তাঁদের অস্ত্রের আওতার মধ্যে চলে আসে আর সঙ্গে সঙ্গে গর্জে ওঠে তাঁদের আরআর গানসহ সব অস্ত্র। গিয়াসউদ্দিন তিনজন সহযোদ্ধার সহযোগিতায় নিখুঁত নিশানায় গানবোট লক্ষ্য করে তিনটি আরআর গোলা নিক্ষেপ করেন। এতে গানবোটটি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে একদিকে হেলে পড়ে। এ সময় তাঁর দুঃসাহসী কয়েকজন সহযোদ্ধা এগিয়ে গিয়ে নিজ নিজ অস্ত্র দিয়ে গুলি শুরু করেন। তাঁদের গুলিতে নিহত হয় দুজন পাকিস্তানি সেনা। এরপর গিয়াসউদ্দিন আরআর গানের আরও কয়েকটি গোলা ছুড়ে গানবোটটি পুরোপুরি ধ্বংসের প্রস্তুতি নেন। কিন্তু তাঁর সে প্রচেষ্টা সফল হয়নি কারণ তুমুল গোলাগুলির শব্দ শুনে মুন্সিগঞ্জ টার্মিনাল থেকে সেখানে আরেকটি গানবোট দ্রুত চলে আসে। এবং মুক্তিযোদ্ধাদের ওপর বৃষ্টির মতো গোলাগুলি শুরু করে। এরপর সেখানে মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থান করাটা ছিল অত্যন্ত বিপজ্জনক। সে জন্য বাধ্য হয়ে গিয়াসউদ্দিন সহযোদ্ধাদের নিয়ে নিরাপদ স্থানে চলে যান।