গেরিলারা যুদ্ধ করেছিল হিট অ্যান্ড রান পদ্ধতিতে

Posted by Anwar Hossan
Feb. 19, 2019, 4:44 p.m.
ঢাকার তিতুমীর কলেজের বিকম তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সাহাব উদ্দিন ছিলেন ঢাকা শহর ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদকের দায়িত্বে। কেন্দ্রের নির্দেশে ১৯৭১ সালের ২৪ মার্চ বিকেলের ট্রেন ধরে ঢাকা থেকে চলে আসেন চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে। মিরসরাই নেমেই খবর পান কুমিল্লা থেকে ট্রাকে করে আসা পাকিস্তানি সেনাদের প্রতিরোধ করতে প্রকৌশলী মোশাররফ হোসেনের নেতৃত্বে শুভপুর সেতুর কাছে অবস্থান নিয়েছে মুক্তিকামী জনতা। ২৬ মার্চ ভোরে মিরসরাইয়ের স্টেশন রোডে অবস্থিত ওয়্যারলেস কার্যালয়ে যান তিনি। ঢাকার ওয়্যারলেস কর্মীরা সারা দেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষণাটি ছড়িয়ে দিচ্ছিলেন। তিনি সে বার্তা গ্রহণ করে মাইক দিয়ে পুরো মিরসরাইয়ে ছড়িয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করেন। এরপর মিরসরাইয়ের বিভিন্ন এলাকায় পাকিস্তানিদের ঠেকাতে প্রতিরোধযুদ্ধে অংশ নেন সাহাব উদ্দিন। ২ মে প্রশিক্ষণ গ্রহণের উদ্দেশ্যে যান হরিণা ক্যাম্পে। ৪৫ দিনের বিএলএফ প্রশিক্ষণ শেষে জুলাইয়ের শেষ দিকে ফিরে আসেন মিরসরাইয়ে। এরপর থানা কমান্ডার ওহিদুল হকের নেতৃত্বে গেরিলা যোদ্ধা হিসেবে যুদ্ধের পক্ষে জনমত সৃষ্টি করা, পাকিস্তানি দালালদের হত্যা করা এবং হিট অ্যান্ড রান পদ্ধতিতে যুদ্ধ করে পাকিস্তানিদের বাধা দেওয়ার কাজ করতে থাকেন তিনি। মিরসরাই দক্ষিণের অপারেশন কমান্ডার হিসেবে তাঁর নেতৃত্বে মিরসরাইয়ের আবু তোরাব সড়কসহ বেশ কয়েকটি জায়গায় সফল অভিযান পরিচালনা করেন গেরিলারা। সূত্র- http://www.prothomalo.com/bangladesh/article/486841/%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%81%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%AE%E0%A7%81%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A6%AF%E0%A7%81%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%A7