মালিগ্রাম-বিষ্ণুপুর গণহত্যা

Posted by ???? ?????
Feb. 19, 2019, 4:44 p.m.
৭১ সালের আগস্টে মুক্তিযোদ্ধারা দরবস্ত-কানাইঘাট সড়কের ওপর নির্মিত বিষ্ণুপুর সেতুটি ভেঙ্গে ফেলে। এসময় তিন রাজাকারকে হত্যা করা হয়। ১৯৭১ সালের ৩১ আগস্ট সেই ৩ রাজাকারকে হত্যার প্রতিশোধ নিতে পাক বাহিনীর ক্যাপ্টেন বশারত ছুটে যায় বড়চতুল ইউপির মালিগ্রামে। সেখান থেকে ২৪ জন মুক্তিযোদ্ধাকে ধরে আনে। বিষ্ণুপুর খালের পারে তাঁদেরকে দিয়ে কবর খুঁড়িয়ে ১৯ জনকে জীবন্ত মাটি চাপা দেওয়া হয়। ৩ জনকে গুলি করে হত্যা করে সামান্য দূরেই মাটি চাপা দেয় তারা। গুলিবিদ্ধ হয়েও ২ জন বেঁচে যান। পরবর্তীতে মালিগ্রামে গিয়ে প্রায় ৭৪টি বসতঘর পুড়িয়ে দেয় পাক বাহিনী। এসময় তারা পাঁচ শতাধিক সাধারণ গ্রামবাসির ওপর চালায় পাশবিক নির্যাতন। মালিগ্রামের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা হলেন, বতু মিয়া, চান্দ আলী, খলিলুর রহমান, আবদুল ওহাব, আবদুল কাদির, আবদুল মুতলিব, জহির আলী, তবারক আলী, ইছরাক আলী, মোবারক আলী, তুতা মিয়া, সওকত আলী, আবদুল খালিক, আব্দুর রশিদ, শামছুল হক, খোরশেদ আলী, ছিফত উল্লাহ, ওয়াজি উল্লাহ, কনু মিয়া, খুরবান আলী, আরব আলী, ইউসুফ আলি। গুলি খেয়েও বেঁচে যান শুক্কুর আলী ও রফিকুল হক। ১৯ জন শহীদের গণকবরে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ও জেলা পরিষদের সহায়তায় স্মৃতিসৌধ নির্মিত হয়েছে। পাশেই লোকচক্ষুর আড়ালে পড়ে আছে অপর ৩ মুক্তিযোদ্ধার কবর। তথ্যসূত্রঃ বধ্যভূমির গদ্য