শাখারীকাঠি গণহত্যা

Posted by Razibul Bari Palash
Feb. 19, 2019, 4:44 p.m.
শাখারীকাঠি গণহত্যা মোরেলগঞ্জ উপজেলার উত্তর প্রান্তের দৈবজ্ঞহাটি বাজারের কাছে বিশ্বাস বাড়িতে বসানো হয় রাজাকার ক্যাম্প। মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে সেখানে রাজাকারদের কয়েকদফা যুদ্ধ হয়। ৪ নভেম্বর ১৭ কার্ত্তিক ১৩৭৮ বৃহস্পতিবার সারারাত উভয়পক্ষের মধ্যে গুলিবিনিময় চলে। স্থানীয় রাজাকারদের আহ্বানে পর দিন দুপুরের মধ্যেই কচুয়া উপজেলার রাজাকাররা সেখানে আসে। ৫ নভেম্বর শুক্রুবার কচুয়া উপজেলার শাখারীকাঠি গ্রামের হাট ছিল। সূর্য ডোবার বেশ আগেই শতাধিক অস্ত্রধারী রাজাকার বাজারটিকে ঘিরে ফেলে। বাজার থেকে ৮২ জনকে বেঁধে বিষখালী খালপাড়ে নেয় তারা। প্রত্যক্ষদর্শী আবদুল খালেক লিখেছেন, হুইসেল দিয়ে প্রচণ্ড গুলি করা শুরু করে তারা। ৮২ জনকে বাঁধা হলেও কয়েকজন বেঁচে যান। পরদিন বিষখালী খালের পুবে রামচন্দ্রপুর গ্রামের এক প্রান্তে লাশগুলো গণকবর দেওয়া হয়। সেদিন ৪২টি লাশ বিষখালী নদীর চরে মাটিচাপা দেওয়া হয়। (মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর সংগৃহীত তথ্যসূত্র: বাগেরহাটের ইতিহাস, দ্বিতীয় খন্ড-ড. শেখ গাউস মিয়া, পৃ.-২৬৮-২৬৯; একাত্তরের বধ্যভূমি ও গণকবর – সুকুমার বিশ্বাস, পৃ.-৩১০-৩১৬; যুদ্ধাপরাধ গণহত্যা ও বিচারের অন্বেষণ – ডা. এম এ হাসান, পৃ.-৩৯৫; একাত্তরের বাগেরহাট – স্বরোচিষ সরকার, পৃ.-২৭৫-২৭৭)। - - - সূত্রঃ বধ্যভূমির গদ্য Pinned by: সংগ্রামের নোটবুক (www.facebook.com/songramernotebook) বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ পিনগুলো স্বেচ্ছাসেবকরা করেছেন। তথাপি তথ্য বা পিন সংক্রান্ত কোন মতামত বা সংশোধনীর ক্ষেত্রে নিচের লিংকে ইনবক্স করুন অথবা ইমেইল করে জানাতে পারেন। Facebook page link - https://www.facebook.com/priyopins/ E-mail address - [email protected] ধন্যবাদান্তে - মুক্তিপিন রিসার্চ টিম।