শহীদ তরিকউল্লাহ

Posted by AL Amin Khan
Feb. 19, 2019, 4:44 p.m.
তরিকউল্লাহ যুদ্ধ করেন ৮ নম্বর সেক্টর এলাকায়। সাহসিকতার সঙ্গে অনেক যুদ্ধে অংশ নিয়েছেন। মে মাসের শেষ দিকে সীমান্ত এলাকায় পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের ভয়াবহ এক যুদ্ধ হয়। এই যুদ্ধে তরিকউল্লাহ মুক্তিবাহিনীদের একটি দলের নেতৃত্ব দেওয়ার পাশাপাশি সাহসিকতার সঙ্গে নিজেও প্রত্যক্ষ যুদ্ধ করেন। এই যুদ্ধের বিবরণ আছে সুকুমার বিশ্বাসের মুক্তিযুদ্ধে রাইফেলস ও অন্যান্য বাহিনী বইয়ে (মাওলা ব্রাদার্স, ঢাকা ১৯৯৯)। পাকিস্তানি সেনারা ২৭-২৮ মে ভোর চারটার দিকে দুটি কোম্পানি নিয়ে মুক্তিবাহিনীর অবস্থানের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। উভয় পক্ষে ব্যাপকভাবে সংঘর্ষ হয়। পাকিস্তানি সেনারা তেমন সুবিধা না করতে পেরে পেছনে সরে যায়। সকাল ছয়টায় পুনরায় পাকিস্তানি সেনারা পাল্টা আক্রমণ করে। থেমে থেমে এই সংঘর্ষ ১৪ ঘণ্টা স্থায়ী হয়। পাকিস্তানি সেনাদের একটি ব্যাটালিয়নের বিভিন্ন কোম্পানি বিভিন্ন সময় এই সংঘর্ষে অংশ নেয়। এই সংঘর্ষে পাকিস্তানি সেনাদের পক্ষে ব্যাটালিয়ন কমান্ডার আহত ও একজন ক্যাপ্টেনসহ ১৩০ জনের মতো নিহত হয়। মুক্তিবাহিনীর দুজন শহীদ ও আটজন আহত হয়। এই সংঘর্ষে জব্বার, বেলায়েত হোসেন, তরিকউল্লাহ অপূর্ব বীরত্বের পরিচয় দেন। মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত পর্যায়ে ২৮ বা ২৯ নভেম্বর যশোর জেলার শার্শা উপজেলার কাগজপুকুর এলাকায় এক যুদ্ধে বীর মুক্তিযোদ্ধা তরিকউল্লাহ শহীদ হন।