শহীদ মোহাম্মদ লোকমান

Posted by Md. AL AMIN
Feb. 19, 2019, 4:44 p.m.

১৯৭১ সালের ৫ জুন ফেনী জেলার অন্তর্গত ছাগলনাইয়া উপজেলাবিলোনিয়া এলাকা জুন মাসের ২২ তারিখ পর্যন্ত মুক্ত ছিল। মুক্তিযোদ্ধারা মুক্ত বিলোনিয়ায় অবস্থান নিয়ে আশপাশ এলাকায় অপারেশন পরিচালনা করছিলেন। জুন মাসের প্রথমার্ধে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী মুক্ত বিলোনিয়া এলাকা দখলের জন্য অভিযান শুরু করে। ৩ জুন পাকিস্তান সেনাবাহিনী ফেনী থেকে বান্দু-দৌলতপুর রেললাইন এবং ছাগলনাইয়া হয়ে উত্তর দিকে যাওয়া লাইন ধরে অগ্রসর হতে থাকে। প্রথম দিন তারা প্রতিরোধের সম্মুখীন হননি। ৪ জুন মুক্তিযোদ্ধাদের অগ্রবর্তী দলের সঙ্গে তাদের প্রথম যুদ্ধ হয়। সেদিন তারা প্রতিরোধের সম্মুখীন হয়ে পিছু হটে যান। ৫ জুন তারা অতর্কিতে আবার আক্রমণ শুরু করে। এদিন ছাগলনাইয়ার দিক দিয়ে অগ্রসর হতে থাকা পাকিস্তানি সেনাদের দল ছিল বেশ বেপরোয়া। ছাগলনাইয়ায় অবস্থানরত মুক্তিযোদ্ধারা অগ্রসর হতে থাকা পাকিস্তানি সেনাদের বিপুল বিক্রমে প্রতিরোধ করেন। পাকিস্তানি সেনারা মুক্তিযোদ্ধাদের পাল্টা আক্রমণে যথেষ্ট ক্ষতির সম্মুখীন হয়। তার পরও তারা এগোতে থাকে। তখন ছাগলনাইয়ায় ভয়াবহ রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ হয়। কয়েক ঘণ্টা ধরে চলা যুদ্ধে মুক্তিবাহিনীই জয়ী হয়। প্রতিরক্ষা অবস্থানে মোহাম্মদ লোকমান ও তাঁর সহযোদ্ধারা সতর্ক অবস্থায় ছিলেন। যেকোনো সময় পাকিস্তান সেনাবাহিনী আক্রমণ করতে পারে এমন আশংকায়। ভোর হতেই শুরু হলো পাকিস্তান সেনাবাহিনীর আক্রমণ। তাঁরাও পাল্টা আক্রমণ চালালেন। কিন্তু পাকিস্তানি সেনারা বেশ বেপরোয়া। গোলাগুলিতে হতাহত হলো বেশ কয়েকজন পাকিস্তানি সেনা। তার পরও তারা এগিয়ে আসতে থাকে। মোহাম্মদ লোকমান ও তাঁর সহযোদ্ধারা বিপুল বিক্রমে ও সাহসিকতার সঙ্গে পাকিস্তানি সেনাদের মোকাবিলা করতে থাকেন। থমকে যায় পাকিস্তানি সেনাদের অগ্রযাত্রা। প্রচণ্ড গোলাগুলি চলতে থাকে। এমন সময় হঠাৎ গুলিবিদ্ধ হয়ে লুটিয়ে পড়লেন মোহাম্মদ লোকমান। রক্তে রঞ্জিত হয়ে গেল তাঁর বাংকার। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর গুলিতে মোহাম্মদ লোকমানসহ তিনজন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ এবং কয়েকজন আহত হন। মোহাম্মদ লোকমান একটি বাংকারে ছিলেন। সেখান থেকে সাহসিকতার সঙ্গে যুদ্ধ করছিলেন। হঠাৎ তাঁর শরীরে এক ঝাঁক গুলি লাগে। সঙ্গে সঙ্গে শহীদ হন তিনি। সেদিন পাকিস্তান সেনাবাহিনীরও ৪০-৫০ জন হতাহত হয়। https://bn.wikipedia.org/s/9t4a উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে