শহীদ মো. আশরাফ আলী খান

Posted by Md. AL AMIN
Feb. 19, 2019, 4:44 p.m.

১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত পর্যায়ে। ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেট রেলপথে আখাউড়া রেলজংশনের কাছে আজমপুর রেলস্টেশনের অবস্থান। আখাউড়া-আজমপুর ১৯৭১ সালে সামরিক দিক থেকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। রাতে যুদ্ধবিরতি। মো. আশরাফ আলী খানসহ পরিশ্রান্ত মুক্তিযোদ্ধারা বিশ্রাম নিচ্ছেন। তিনি একটি উপদলের (প্লাটুন) দলনেতা। সবাই সতর্ক অবস্থায়। কেউ আধাঘুমে, কেউ জেগে। শেষ রাতে তাঁদের প্রতিরক্ষা অবস্থানে আকস্মিক আক্রমণ চালায় পাকিস্তানি সেনারা। নিমেষে শুরু হয়ে যায় তুমুল যুদ্ধ। চারদিকে বারুদের উৎকট গন্ধ, গোলাগুলিতে প্রকম্পিত। এ রকম যুদ্ধে রক্তপাত, একাধিক মৃত্যু ও ক্ষয়ক্ষতি অবশ্যম্ভাবী। মো. আশরাফ আলী খানসহ মুক্তিযোদ্ধারা এতে বিচলিত হননি। সাহসিকতার সঙ্গে তাঁরা পাকিস্তান সেনাবাহিনীর আকস্মিক আক্রমণ মোকাবিলা করেন। সমানতালে যুদ্ধ চলে। সকালে পাকিস্তান সেনা-বাহিনীর আক্রমণের তীব্রতা প্রচণ্ডভাবে বেড়ে যায়। মুহুর্মুহু শেল ও রকেট এসে পড়ে মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থানে। শেল ও রকেটের স্প্লিন্টারের আঘাতে আহত মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ক্রমে বাড়ে। তাঁদের আর্তনাদ ছড়িয়ে পড়ে সহযোদ্ধাদের মধ্যে। আক্রমণের প্রচণ্ডতায় আশরাফ আলী খানের সহযোদ্ধারা কিছুটা বিশৃঙ্খল হয়ে পড়েন। কেউ কেউ পিছু হটে যান। এই পরিস্থিতিতে দলনেতার ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। তিনি অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে সেই ভূমিকা যথাযথভাবে পালন করেন। নিজের জীবন বাজি রেখে সহযোদ্ধাদের মনে সাহস জুগিয়ে তাঁদের ছত্রভঙ্গ হয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করেন। তাঁর প্রচেষ্টায় সহযোদ্ধারা পুনসংগঠিত ও অনুপ্রাণিত হয়ে সাহসিকতার সঙ্গে পাল্টা আক্রমণ চালান। তাঁদের বীরত্বে থেমে যায় বেপরোয়া পাকিস্তানি সেনাদের অগ্রযাত্রা। তুমুল যুদ্ধ চলতে থাকে। মো. আশরাফ আলী খান সহযোদ্ধাদের নিয়ে অগ্রভাগে ছিলেন। এক পর্যায়ে হতোদ্যম পাকিস্তানি সেনারা পিছু হটতে শুরু করে। এমন সময় পাকিস্তানি সেনাদের ছোড়া একঝাঁক গুলি ছুটে আসে মো. আশরাফ আলী খানের দিকে। কয়েকটি গুলি লাগে তাঁর শরীরে। বিদীর্ণ হয়ে যায় শরীর। মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তিনি। সহযোদ্ধারা উদ্ধার করার আগেই নিভে যায় তাঁর জীবনপ্রদীপ। ৩০ নভেম্বর থেকে ৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত এই এলাকায় যুদ্ধ সংঘটিত হয়। মুক্তিবাহিনীর কয়েকটি দল এ যুদ্ধে অংশ নেয়। সেদিন দিনব্যাপী রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর মুক্ত হয় আজমপুর রেলস্টেশনসহ বিরাট এক এলাকা। পাকিস্তানি সেনারা পালিয়ে যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের দিকে। তবে যুদ্ধে আশরাফ আলী খান, তাঁর অধিনায়ক ইবনে ফজল বদিউজ্জামানসহ (বীর প্রতীক) আট জন শহীদ হন। যুদ্ধ চলাকালেই সহযোদ্ধারা তাঁকে সমাহিত করেন আজমপুর রেলস্টেশনের পাশেই। তাঁর সমাধি সংরক্ষিত।