সিরাজউদ্দীন আহমেদ বীর মুক্তিযোদ্ধা

Posted by Ashikur Rahaman Sajib
Feb. 19, 2019, 4:44 p.m.
মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা ১৯৭১ সালের ১৩ আগস্ট নরসিংদী জেলার অন্তর্গত জিনারদী (ঘোড়াশালের পাশে) পাকিস্তান সেনাবাহিনী এখানে একটি ক্যাম্প স্থাপন করে। ১৩ আগস্ট দুপুরে মুক্তিযোদ্ধারা জিনারদীতে আক্রমণ করেন। আড়াই ঘণ্টা যুদ্ধের পর ১৫ জন পাকিস্তানি সেনা মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে আত্মসমর্পণ করে। সাতজন পালিয়ে যায়। একজন নিহত হয়। এরপর মুক্তিযোদ্ধারা জিনারদী রেলস্টেশন ধ্বংস করেন। এই যুদ্ধে সিরাজউদ্দীন আহমেদ অসীম সাহস ও বীরত্ব এবং কৌশল প্রদর্শন করেন। তাঁরা ছিলেন মাত্র কয়েকজন। মূলত তাঁর কৌশলী ভূমিকার জন্যই পাকিস্তানি সেনারা সেদিন পরাজিত হয়। সিরাজউদ্দীন আহমেদের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা অতর্কিতে আক্রমণ চালালেন পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ক্যাম্পে। আকস্মিক আক্রমণে হকচকিত পাকিস্তানি সেনারা। কিছুক্ষণ পর তাদের দিক থেকে শুরু হলো প্রতিরোধ। তুমুল যুদ্ধ চলতে থাকল। আড়াই ঘণ্টা ধরে চলা যুদ্ধে শেষ পর্যন্ত মুক্তিযোদ্ধারাই বিজয়ী হলেন। এ যুদ্ধ নিয়ে মুক্তিবাহিনীর ২ নম্বর সেক্টরের অধিনায়ক খালেদ মোশাররফ জানিয়েছিলেন, আগস্ট মাসের ১৩ তারিখে আমাদের একটি গেরিলা দল পাকিস্তানি সেনাদের জিনারদী ক্যাম্প আক্রমণ করে। আড়াই ঘণ্টা যুদ্ধের পর একজন নিহত, ১৫ জন আত্মসমর্পণ করে। সাতজন পালিয়ে যায়। গেরিলারা জিনারদী রেলস্টেশন সম্পূর্ণভাবে ধ্বংস করে দেয়। টেলিফোন যোগাযোগও তারা ধ্বংস করে। টিকিট ও অন্যান্য কাগজপত্র জ্বালিয়ে দেয়। ক্যাম্প থেকে আমাদের গেরিলারা একটি হালকা মেশিনগান, ১১টি রাইফেল, হালকা মেশিনগানের ৪৫০০ গুলি, ১টি স্টেনগান ও ১০০ রাউন্ড গুলি, ১০টি বেল্ট, ২৬ জোড়া বুট, ১৭ ক্যান আটা, ১১ পেটি দুধ ও আরও জিনিসপত্র উদ্ধার করা হয়। https://bn.wikipedia.org/s/9kiy উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে